ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ১ জুলাই ২০২২ ১৭ আষাঢ় ১৪২৯
ই-পেপার শুক্রবার ১ জুলাই ২০২২
http://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

মুশফিক-লিটনে আলোর দিশা
রাজু আহাম্মেদ
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৪ মে, ২০২২, ৮:৪৪ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 126

গতকাল যখন দিনশেষে স্কোরবোর্ডে বাংলাদেশের নামের পাশে শোভা পাচ্ছিল ২৭৭/৫। এটা দেখে যে কেউ বলবে, মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সোমবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় এবং শেষ টেস্টের প্রথম দিনে আগা-গোড়া রাজত্ব করেছে মুমিনুল হকের দল। কিন্তু ম্যাচটা যারা দেখেছেন, তারা জানেন, দুর্বোধ্য ব্যাটিংয়ে দিনের শুরুতেই অন্ধকারে হারাতে বসেছিল স্বাগতিকরা। রেকর্ডের পাতা ওলট-পালট করে দেওয়া জুটিতে সেই অন্ধকার থেকে দলকে আলোর দিশা দেখিয়েছেন মুশফিকুর রহিম আর লিটন কুমার দাস।

দিনভর ব্যাটিং করেছেন দুজন। লঙ্কান বোলারদের তেমন কোনো সুযোগই দেননি তারা। অথচ লিটন-মুশফিকের সতীর্থরাই প্রতিপক্ষকে দাপুটে শুরুর সুযোগ করে দিয়ে দলকে ঠেলেছেন অন্ধকারে। ম্যাচে বাংলাদেশের শুরুটা ছিল দুঃস্বপ্নের মতো। ৬.৫ ওভারে ২৪ রান তুলতেই সাজঘরে পাঁচ ব্যাটার। লঙ্কান দুই পেসারের বলে জয়-তামিম-মুমিনুল-শান্ত-সাকিবরা এমনভাবে আউট হলেন, দেখে মনে হলো- মিরপুরে নয়, নিখাদ পেসবান্ধব পার্থের ওয়াকায় খেলতে নেমেছেন তারা। সেখানে লঙ্কান পেসার কাসুন রাজিথা আর আসিথা ফার্নান্দো হলেন ব্রেট লি-গ্লেন ম্যাকগ্রা! মিরপুর শেরেবাংলার উইকেট এমনিতে স্পিনবান্ধব। তবে সকালের সেশনে এখানে পেসারদের জন্যও কিছু রসদ মজুদ থাকে। সেটাই দারুণভাবে কাজে লাগিয়েছেন ৩ উইকেট নেওয়া রাজিথা আর ২ উইকেট নেওয়া আসিথা। বাড়তি সুইংয়ের সঙ্গে বাউন্সও পেয়েছেন তারা। সেটাই বিপাকে ফেলেছে তামিম-মুমিনুলদের। মিডলস্টাম্পের ওপর থাকা বলে ফ্লিক করতে গিয়েছিলেন তামিম ইকবাল। কিন্তু আসিথার ইনসুইঙ্গারটি (বাঁহাতি ব্যাটারের জন্য আউট সুইং) প্রত্যাশার থেকে একটু বেশি বাঁক নেওয়ায় ব্যাটের বাইরের কানায় লেগে ক্যাচ উঠে যায় পয়েন্টে। এই পেসারের বলেই মুমিনুল ক্যাচ দিয়েছেন উইকেটরক্ষকের গ্লাভসে।

নাজমুল হোসেন শান্ত তো রাজিথার বলের লাইনই বুঝতে পারেননি। হয়েছেন বোল্ড। ঠিক এর পরের বলে এলবিডব্লিউ সাকিব। এর আগে রাজিথার করা ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই বোল্ড হয়ে ফেরেন মাহমুদুল হাসান জয়। সব মিলে দিনের প্রথম আধঘণ্টা ছিল দুঃস্বপ্নের। প্রথম সেশনেই অলআউট হয়ে যাওয়ার একটা আতঙ্কও সম্ভবত পেয়ে বসেছিল স্বাগতিকদের। অধিনায়ক মুমিনুল তখন নিশ্চিত করেই নিজেকে গালমন্দ করছিলেন টস জিতে আগে ব্যাটিং নেওয়ার জন্য! সমালোচকরা তো এমনিতেই তাকে সর্বদা শূলে চড়ানোর জন্য তৈরি হয়েই থাকেন। তবে দিনের পরবর্তী সময়ে উইকেটের যে আচরণ দেখা গেছে, তাতে এ যাত্রায় মুখে কুলুপ আটতেই হচ্ছে সমালোচকদের।

টিম ম্যানেজমেন্টের পরামর্শে মুমিনুলের আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত যে ভুল ছিল না, চওড়া ব্যাটে তা দেখিয়ে দিয়েছেন মুশফিক আর লিটন। ত্রাতার ভূমিকায় এই যুগল ছিলেন দুর্দান্ত। চট্টগ্রাম টেস্টে ১৬৪ রানের জুটি গড়া দুই ব্যাটার মিরপুরে পেরুলেন দ্বিশতক। কলম্বোয় ২০০৭ সালে মোহাম্মদ আশরাফুলের সঙ্গে ১৯১ রানের জুটি গড়েছিলেন মুশফিক, ষষ্ঠ উইকেটে এতদিন সেটাই ছিল বাংলাদেশের সর্বোচ্চ। এবার লিটনকে নিয়ে নিজের রেকর্ডটা আরও সমৃদ্ধ করেছেন মুশফিক। ২৫৩ রান তুলে অবিচ্ছিন্ন তারা। দ্বিতীয় দিনে আজ আরও কিছুক্ষণ তারা ব্যাটিংটা চালিয়ে যেতে পারলে যেকোনো উইকেটে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ২৬৭ রানের জুটিটাকে পেছনে ফেরার সুযোগ আছে তাদের।

টানা দুই টেস্টে সেঞ্চুরি, সব মিলে ক্যারিয়ারের নবম সেঞ্চুরি তুলে নেওয়া মুশফিক অপরাজিত আছেন ১১৫ রানে, ২৫২ বল খেলে ১৩টি চারের মারে ইনিংসটি সাজিয়েছেন এই ব্যাটার। তার থেকে তুলনামূলক আক্রমণাত্মক ছিলেন লিটন। চট্টগ্রামে ৮৮ রানে আউট হয়ে সেঞ্চুরির সুযোগ নষ্ট করার হতাশাটা দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ঘুচিয়েছেন তিনি। ব্যক্তিগত ৪৭ রানে জীবন পাওয়া এই ডানহাতি ২২১ বল খেলে ১৬টি চার আর একটি ছক্কায় ১৩৫ রানে অপরাজিত আছেন। ক্যারিয়ারে এটি তার তৃতীয় সেঞ্চুরি, একই সঙ্গে ক্যারিয়ারসেরাও। অন্ধকারে হারাতে বসা দলকে আলোয় ফেরাতে বাস্তবিক অর্থেই লিটন ঢেলে দিয়েছেন নিজের সেরাটা।

/জেডও

http://www.shomoyeralo.com/ad/Local-Portal_Send-Money_728-X-90.gif

আরও সংবাদ   বিষয়:  মুশফিক-লিটন  




http://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]