ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ২৬ জুন ২০২২ ১১ আষাঢ় ১৪২৯
ই-পেপার রোববার ২৬ জুন ২০২২
http://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

পাবনার সাঁথিয়ায় দুই ভাইকে কুপিয়ে জখম
পাবনা প্রতিনিধি
প্রকাশ: রোববার, ২২ মে, ২০২২, ১০:১৭ পিএম আপডেট: ২২.০৫.২০২২ ১০:৪৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 661

পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পাবনা সাঁথিয়াতে মো. সোহলে রানা (৩৫) ও তানজিব রহমান সাকিল (৩০) নামে দুই ভাইকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে দূর্বৃত্তরা।

শুক্রবার (২০ মে) দুপুরের দিকে নিজেদের দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফেরার পথে তাদের ওপর হামলা করা হয়। এই হামলায় স্থানীয় সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে তাদের দুই ভাইকে হত্যা করতে চেয়েছিলো বলে অভিযোগ পরিবারের।

এদিকে হামলার ঘটনায় পরে আহতদের মা কদবানু খাতুন বাদী হয়ে সংশ্লিষ্ট থানায় নাম উল্লেখ করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তারপরও অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করা হয়নি, তারা প্রকাশ্যে ঘুড়ে বেড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ করছে ভুক্তভোগী পরিবার।

এদিকে হামলার শিকার দুই ভাইকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রাজশাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। আহতের মাথায়, হাতে, ঘারে, পিঠে, পায়ে ধারো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে।

স্থানীয় ও আহতদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ধুপাদাহ ইউনিয়নের দৈলতপুর গ্রামের কৃষক ওয়াহিদুল ইসলামের দুই ছেলে মো. সোহেল রানা ও মো. তানজিব রহমান সাকিল। গত শ্রক্রবার দুপুরে সাঁথিয়া বাজারে নিজেদের দোকান বন্ধ করে  তারা বাড়িতে ফিরছিলন। পথিমধ্যে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তাদের ওপর দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। তারা দুই ভাইকে আঘাত করে গুরুত্বর আহত করে। পরবর্তীতে তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে পরিবারের সহযোগিতায় তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে অবস্থার অবনতি হলে তাদের দ্রুত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। বর্তমানে দুই ভাইয়ের মধ্যে বড় ভাই সোহলে রানা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। আরেক ভাই সাকিল পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

হামলায় আহতদের বাবা ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, খুব বিপদের মধ্যে আছি। আমরা গরিব মানুষ কোনও ঝামেলার মধ্যে আমরা থাকি না। আমার বড় ছেলে আগে পুলিশে চাকরি করতো। বউয়ের সাথে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পরে তার চাকরি চলে গেছে। এরপর থেকে দুই ছেলেই আমার ভুষির দোকানে বসে। বড় ছেলের সাবেক স্ত্রী টাকা পয়সা দিয়ে স্থানীয় জামায়াত-বিএনপির সন্ত্রাসীদের দিয়ে আমার ছেলেকে পিটিয়েছে। দুইজনের অবস্থাই খুব খারাপ ছিল। তাদের রাজশাহী নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সন্ত্রাসীরা আবার ক্ষতি করার জন্য হুমকি দিচ্ছে। আমরা আতঙ্কের মধ্যে আছি। আমাদের বাঁচান। 

তিনি বলেন, পুলিশ ওদের (অভিযুক্তদের) কিছু করছে না। তারা রাজনৈতিক শক্তি ব্যবহার করছে। আমরা অসহায় আমাদের বাঁচাবে কে। আপনাদের কাছে বিচার চাই আমরা। যারা আমার দুই ছেলেকে মেরেছে তাদের সকলের নামও পুলিশ দেয় নাই। 

তিনি আরো বলেন, এই হামলায় এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী নয়ন বাহিনীর সদস্য দৈলত, সাইফুল, আলম, মাসুম, মুক্তি, ফারুকসহ আরো বেশ কয়েকজন ছিলো। এরা সকলেই নয়ন বাহিনীর সদস্য।

মামলার বাদী কদবানু খাতুন বলেন, আমার ছেলের আগের যে বউ ছিল, সে ও তার ভাই লোকজনকে টাকা পয়সা দিয়ে আমার ছেলেদের মার খাইয়েছে। আবার আমারে নামে মিথ্যা মামলাও দিয়েছে। ওই মল্লিক পরিবারর লোকজন সন্ত্রাসী ভাড়া করে আমার ছেলেদের হত্যা করবে চেয়েছিল। আমার বিচার চাই, কিন্তু পুলিশ তাদের ধরছে না। একবার মেরে আবারও হুমকি দিচ্ছে। এখন আমরা ভয়ের মধ্যে আছি।

এ বিষয়ে পাবনা সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম বলেন, সামান্য ভোটার আইডি কার্ড ও জন্ম নিবন্ধনের কাগজ নিয়ে ঘটনার সূত্রপাত। যে দু’জন আহত হয়েছেন, তাদের মধ্যে একজন সাবেক পুলিশ সদস্য।

তার স্ত্রীর সাথে ছাড়াছাড়ি হয়েছে বেশ কয়েকদিন আগে। তাদের একটি সন্তানও আছে। সেই সন্তানকে স্কুলে ভর্তির জন্য জন্ম নিবন্ধন প্রয়োজন ছিল- এরই সূত্র ধরেই সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের আরও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। উভয় পক্ষই অভিযোগ দিয়েছেন। মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। এখন তদন্ত কাজ চলছে। তদন্ত শেষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

/এসকে

http://www.shomoyeralo.com/ad/Local-Portal_Send-Money_728-X-90.gif

আরও সংবাদ   বিষয়:  কুপিয়ে জখম   পাবনা  




এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


http://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]