ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ১ জুলাই ২০২২ ১৭ আষাঢ় ১৪২৯
ই-পেপার শুক্রবার ১ জুলাই ২০২২
http://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

টঙ্গীতে ভয়ঙ্কর ডাকাত
এসএম মিন্টু
প্রকাশ: শনিবার, ২১ মে, ২০২২, ৪:৩০ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 182

ডাকাতি ও ছিনতাইয়ের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে টঙ্গী ও এর আশপাশের এলাকা। চার দিনে চার বাড়িতে ডাকাতির ঘটনার পর এক কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় নতুন করে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে এলাকাবাসীর মধ্যে।

ভয়ঙ্কর ডাকাতরা নারী-পুরুষ, বৃদ্ধা ও শিশুদের হাত-পা বেঁধে মারধর করে মালামাল লুট করার ঘটনায় এলাকাবাসী বলছেন টঙ্গী এখন ‘ডেঞ্জার জোন’-এ পরিণত হয়েছে। গত এপ্রিলে ছয়টি ডাকাতির ঘটনার পর গত চার দিনে চার বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় উদ্বিগ্ন এলাকাবাসী। তবে পুলিশের ভাষ্য, এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাঘাট নির্মাণকাজ বন্ধ থাকা, বহুতল ভবনে সিসি ক্যামেরা না থাকা এবং পাড়া-মহল্লায় রাস্তায় দোকানপাট থাকায় দুর্বৃত্তরা এসব ঘটনা ঘটিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, এলাকায় চাঁদাবাজি, মাদক কারবার ও কিশোর গ্যাংয়ের উৎপাত থাকায় ডাকাতি-ছিনতাই বেড়েছে। আর চুরির ঘটনা ঘটছে অহরহই।

গাজীপুর মহানগর পুলিশ (জিএমপি) কমিশনার ডিআইজি খন্দকার লুৎফুল কবির ডাকাতির পর সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনা স্বীকার করে বৃহস্পতিবার সময়ের আলোকে বলেন, গত পাঁচ মাসে মোট ৮টি ডাকাতির ঘটনায় সব ঘটনায় আসামিদের গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে এপ্রিলে ৬টি ডাকাতির ঘটনা রয়েছে। গত চার দিনে যে চারটি ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে এসব ঘটনায়ও জড়িতদের শিগগিরই গ্রেফতার করা হবে।

গত রোববার রাতে টঙ্গীর শেরেবাংলা রোডে ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনায় মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ওইদিন রাতের খাবার খেয়ে পরিবারের সবাই ঘুমিয়ে পড়লে রাত ৩টার দিকে হঠাৎ আগ্নেয়াস্ত্র ও ধারালো অস্ত্র হাতে অজ্ঞাতনামা ৬ থেকে ৭ জন তরুণ হানা দেয়। তারা অস্ত্রের মুখে গৃহকর্তাকে রড দিয়ে আঘাতের পর হাত-পা-মুখ বেঁধে ফেলে। এরপর ডাকাতরা গৃহকর্তার স্ত্রী, শিশুসন্তান, বৃদ্ধ মা ও ভাগ্নির হাত-পা বেঁধে ফেলে। মালামাল লুটের পর বৃদ্ধাকে পাশের রুমে রেখে তার নাতনিকে তিনজন অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণ করে। এরপর লুট করা মালামাল নিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়। কিন্তু ঘটনার পাঁচ দিন পেরিয়ে গেলেও ওই ডাকাতদের কাউকেই গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। ওই ঘটনার পর গৃহকর্তা আতঙ্কে বাসা ছেড়ে সপরিবারে পালিয়ে যান। ওই রাতে পাশের আরেকটি বাসার দ্বিতীয় তলায় ও দক্ষিণ আরিচপুর মুন্সীপাড়া রোডে একটি ও গত বুধবার রাতে আরিচপুরের মুন্সিপাড়া রোডে মোল্লাবাড়ির তৃতীয় তলায় আরেকটি সঙ্ঘবদ্ধ ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

টঙ্গী বাজার চাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান জানান, সোমবার রাত ৩টার দিকে ডাকাতরা বাড়িতে প্রবেশ করে। সঙ্ঘবদ্ধ ডাকাতরা তার বড় ভাইয়ের ফ্ল্যাটে ঢুকে স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। সেদিন ওই বাসায় কেউ না থাকায় ডাকাতরা রাতভর বাসার সব জিনিসপত্র তছনছ করে স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা লুটে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় টঙ্গী পূর্ব থানায় চুরির অভিযোগে মামলা করেন তার ভাই। সিসি ক্যামেরা ফুটেজে দুজনকে দেখা গেলেও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

মুজিবুর রহমান সময়ের আলোকে বলেন, গত রোববার তার আরেক বড় ভাই মারা যান। ওই সময় সবাই গ্রামের বাড়ি চলে যান। পরদিন সোমবার ফাঁকা বাসায় প্রবেশ করে সংঘবদ্ধ ডাকাতরা। বাসার সব মালামাল তছনছ করে মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে যায়। ডাকাতদের দুজনকে সিসি ক্যামেরায় দেখা গেলেও তাদের শনাক্ত করা যায়নি।

এই ঘটনার জের না কাটতেই গত বুধবার রাতে মুজিবুর রহমানের বাড়ির পাশের ভবনেও দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। পাঁচ-ছয়জন ডাকাত হাসেম মোল্লার বাড়ির রান্নাঘরের গ্রিল কেটে প্রথমে হাসেম মোল্লার বড় ছেলে লিমনকে হাত-পা-মুখ বেঁধে ফেলে। এ সময় দুটি পিস্তল, চাপাতি ও ধারালো অস্ত্রসহ পর্যায়ক্রমে হাসেম মোল্লার স্ত্রী ও মেয়েকে হাত-পা-মুখ বেঁধে ডাকাতরা প্রায় ৬০ ভরি স্বর্ণ ও নগদ দেড় লাখ টাকা নিয়ে ভোরে চলে যায়। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দুর্বৃত্তদের কাউকেই শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। ঘটনার পরপরই পুলিশ পুরো এলাকায় তল্লাশি চালায়। সিআইডির ক্রাইমসিনের সদস্যরা আলামত সংগ্রহ করেন।

হাসেম মোল্লা সময়ের আলোকে বলেন, সংঘবদ্ধ ডাকাতরা যেভাবে অস্ত্রের মুখে তার পুরো পরিবারকে জিম্মি করেছে তাতে তার স্ত্রী-সন্তানদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

তিনি বলেন, একই বাড়িতে আরও দুই ভাই ও ভাড়াটিয়া রয়েছে, ঘটনার পর সবাই আতঙ্কে রয়েছে। ডাকাতরা পিস্তল, লোহার রড, ধারালো চাকু ও চাপাতি নিয়ে ডাকাতি করে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে তিনি বাদী হয়ে টঙ্গী পূর্ব থানায় মামলা করেন। মামলায় আসামি করা হয় অজ্ঞাতনামা ৫-৬ জনকে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই বাসায় গেলে ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়নি কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যরা। দায়িত্বরত এসআই মনিরকে অনুরোধ করা হলেও তিনি ওই বাড়িতে প্রবেশ করতে নিষেধ করেন।

অন্যদিকে গত বুধবার রাতে টঙ্গী থানা প্রেসক্লাবে চুরির ঘটনা ঘটেছে। টঙ্গী থানা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী ভূঁইয়া সময়ের আলোকে বলেন, থানার দেয়াল টপকিয়ে দুর্বৃত্তরা প্রেসক্লাবের টিন খুলে ভেতরে প্রবেশ করে একটি টিভি নিয়ে যায়। তিনি বলেন, দুর্বৃত্তরা ছিল সঙ্ঘবদ্ধ। তারা ক্লাবের আলমারি ভাঙার চেষ্টা করে।

আরিচপুরের এক বাসিন্দা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, টঙ্গী বাজার তুরাগ তীরে বহিরাগত কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা গভীর রাত পর্যন্ত আড্ডা দেয়। প্রায়ই সেখানে মারামারির ঘটনা ঘটে। প্রকাশ্যে মাদক বিক্রি করছে। পুলিশকে এ বিষয়ে বারবার জানানো সত্ত্বেও পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয় না। যারা এসব অপরাধ করছে বা গভীর রাত পর্যন্ত আড্ডা দিচ্ছে, তারা সবাই অপরিচিত।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের অপরাধী বিভাগের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) ইলতুৎমিশ সময়ের আলোকে বলেন, সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় আসামিদের চিহ্নিত করা হয়েছে। কয়েকজন নজরদারিতে রয়েছে। বুধবার রাতের ডাকাতির ঘটনাও সিসি ক্যামেরা ফুটেজ দেখে দুর্বৃত্তদের চিহ্নিত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তিনি আরও বলেন, এলাকাগুলোতে রাস্তা নির্মাণের নামে মাসের পর মাস কাজ বন্ধ থাকা, রাস্তার ওপর দোকানপাট থাকা ও বহুতল ভবনগুলোতে সিসি ক্যামেরা না থাকায় এ ধরনের অপরাধ বাড়ছে।

http://www.shomoyeralo.com/ad/Local-Portal_Send-Money_728-X-90.gif

আরও সংবাদ   বিষয়:  এসএম মিন্টু   ডাকাত   টঙ্গী  




http://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]