ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২২ জানুয়ারি ২০২২ ৮ মাঘ ১৪২৮
ই-পেপার শনিবার ২২ জানুয়ারি ২০২২
http://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

কলেজে না গিয়ে মর্গে কেন শাহিন, জবাব চান বাবা
চট্টগ্রাম ব্যুরো
প্রকাশ: রোববার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২১, ৩:৪৩ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 180

কলেজে কাজ আছে বলে বাসা থেকে বের হয়। কিন্তু কলেজে না গিয়ে হাসপাতালের মর্গে কেন শাহিন। ক্ষোভ আর কান্না ভেজা কণ্ঠে প্রশ্নের জবাব চাইছিলেন চট্টগ্রামে রেলক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত এইচএসসি পরীক্ষার্থী সাতরাজ উদ্দিন শাহিনের বাবা মো. করিম।

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) বিকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে ছেলের লাশের অপেক্ষায় ছিলেন মো. করিম। সাংবাদিক দেখে ক্ষোভে ফেটে পড়েন তিনি। বলেন, তোমরা আমার শাহিনকে ফিরিয়ে দাও। আমি আর কিছুই চাই না। কলেজে যাওয়ার কথা বলে সে কেন মর্গে লাশ হয়ে পড়ে আছে। এর জবাব চাই। তিনি আরও বলেন, রেলক্রসিংয়ে গেটম্যানের গাফিলতির কারণে এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এ ঘটনার বিচার চাই। আজ আমাদের শাহিন মারা গেছে। ভবিষ্যতে যেন আর কোনো শাহিন এভাবে মারা না যায়।

হাসপাতালের মর্গের সামনে শাহিনের বাবা মো. করিমের সঙ্গে ছিলেন মামা মো. ইউসুফ। তিনি বলেন, রেলক্রসিংয়ের গেটবারটি ফেলা থাকলে এ দুর্ঘটনা ঘটত না। অতীতেও এ ধরনের দুর্ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু কোনো কিছুই হয়নি। তিনি বলেন, শাহিন আর কখনও বাসায় ফিরবে না। শাহিনের মতো শান্ত ও মেধাবি একটা ছাত্র অকালে ঝরে যাবে, মানতে পারছি না। গরিবের ছেলেরা মরে বলে কোনো অ্যাকশন হয় না। আমি এ ঘটনার বিচার চাই। এ ধরনের গাফিলতি কেন বারবার হয়।

তিনি বলেন, দুই ছেলের মধ্যে শাহিন সবার বড়। বোনজামাই একটি দোকানে চাকরি করেন। কষ্ট করে ছেলেকে পড়ালেখা করাচ্ছিলেন। শাহিনের ছোট আরেকটি ভাই আছে। সবার স্বপ্ন ছিল, শাহিন বড় হয়ে পরিবারের হাল ধরবে। কিন্তু কি থেকে কী হয়ে গেল!

খুলশী থানার ওসি শাহিনুজ্জামান বলেন, চট্টগ্রাম নগরের জাকির হোসেন সড়কের ঝাউতলা এলাকার রেলক্রসিংয়ে বাস, সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও টেম্পোর সঙ্গে ডেমু ট্রেনের সংঘর্ষ ঘটে। এতে পুলিশ সদস্যসহ তিনজনের মৃত্যু হয়। তাদেরই একজন পাহাড়তলি ডিগ্রি কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের এইচএসসি পরীক্ষার্থী শাহিন। সে একটি পরীক্ষাও দিয়েছিল। তার বন্ধুরা জানায়, সে মেধাবি ছাত্র ছিল। জেএসসি ও এসএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়েছিল। দুর্ঘটনায় নিহত শাহিন পরিবারের সঙ্গে চট্টগ্রাম নগরীর হামজারবাগ এলাকায় থাকতেন। 

নিহত অন্য দুজন হলেন- সিএমপির ট্রাফিক উত্তর বিভাগে কর্মরত কনস্টেবল মনির উদ্দিন ও সিএনজি যাত্রী সৈয়দ বাহাউদ্দিন আহমেদ। রেলক্রসিংয়ের গেটম্যান আলমগীরের অবহেলার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার পর থেকে আলমগীর পলাতক রয়েছেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]