ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ১৯ আগস্ট ২০২২ ৪ ভাদ্র ১৪২৯
ই-পেপার শুক্রবার ১৯ আগস্ট ২০২২
http://www.shomoyeralo.com/ad/Amin Mohammad City (Online AD).jpg

ওমিক্রনে ‘ঠান্ডার ভাইরাসের জিনগত বৈশিষ্ট্য’
সময়ের আলো ডেস্ক
প্রকাশ: রোববার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২১, ২:৫০ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 339

গবেষকদের একাংশ ধারণা করছেন, ওমিক্রন সাধারণ ঠান্ডার জন্য দায়ী অন্য একটি ভাইরাসের জেনেটিক উপাদানের অংশকে সঙ্গে নিয়ে অন্তত একবার নিজের জিন বিন্যাসের পরিবর্তন ঘটিয়েছে। তারা বলছেন, কোনো দেহের আক্রান্ত কোষে দুটি ভাইরাসের সংমিশ্রণের ফলে এটা হতে পারে। গবেষকদের মতে, ওমিক্রনের যে জেনেটিক বিন্যাস, তা করোনাভাইরাস নামে পরিচিতি সার্স-সিওভি-২-এর আগের সংস্করণগুলোতে দেখা যায়নি; কিন্তু এই বৈশিষ্ট্য অন্য অনেক ভাইরাসেই দেখা যায়, যেসব ভাইরাসের কারণে সাধারণ ঠান্ডা জ্বর দেখা যায়।

নতুন ওই গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে ওএসএফ প্রিপ্রিন্টসে। গবেষক দলের প্রধান কেমব্রিজ, ম্যাসাচুসেটসভিত্তিক ডাটা অ্যানালেটিক্স ফার্মের ভেঙ্কি সৌনদরারাজন। তিনি বলছেন, সুনির্দিষ্ট এই জেনেটিক উপাদান নিজের মধ্যে ঢুকিয়ে ওমিক্রন সম্ভবত নিজেকে আরও বেশি মানুষের উপযোগী করেছে, যা তাকে মানুষের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ফাঁকি দিতেও সাহায্য করছে। জিন বিন্যাসে সাধারণ ঠান্ডার ভাইরাসের বৈশিষ্ট্য থাকার ফলেই হয়তো ওমিক্রন মৃদু উপসর্গ বা কোনো কোনো ক্ষেত্রে উপসর্গ ছাড়াই সহজে ছড়াতে পারছে বলে মনে করা হচ্ছে।

ওমিক্রন অন্য ভ্যারিয়েন্টগুলোর তুলনায় বেশি সংক্রামক কি না, এর আক্রমণ অনেক বেশি তীব্র কি না কিংবা এটি ডেল্টাকে টপকে বিশ্বজুড়ে নিজের আধিপত্য বিস্তার করতে সক্ষম কি না বিজ্ঞানীরা অবশ্য এখনও তা জানাতে পারেননি। এসব প্রশ্নের উত্তর জানতে আরও কয়েক সপ্তাহ লেগে যেতে পারে।

আগের কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, ফুসফুস এবং গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সিস্টেমের কোষ একই সঙ্গে সার্স-সিওভি-২ ও সাধারণ ঠান্ডার করোনাভাইরাসকে আশ্রয় দিতে পারে। এ ধরনের কোনো ক্ষেত্রে একই হোস্ট কোষে দুটি ভাইরাসের সংমিশ্রণ ঘটতে পারে এবং নতুনটির একাধিক কপি তৈরি করতে পারে, যেগুলোর জিন বিন্যাসে আগের দুই ভাইরাসের জেনেটিক উপাদান থাকে।

সৌনদরারাজন এবং তার সহকর্মীদের গবেষণা বলছে, সম্ভবত দুই ভাইরাসে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তির দেহে সার্স-সিওভি-২-এর কোনো সংস্করণ অন্য ভাইরাসের জেনেটিক বৈশিষ্ট্য নিজের মধ্যে ঢুকিয়ে নিয়েছে। সৌনদরারাজনের এই গবেষণা এখনও অন্য গবেষকদের দ্বারা যাচাই বা পিয়ার রিভিউড হয়নি।




http://www.shomoyeralo.com/ad/Google-News.jpg

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]