ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ৫ ডিসেম্বর ২০২১ ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
ই-পেপার রোববার ৫ ডিসেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

অন্যের ধর্মের প্রতি সম্মান দেখাতে হবে
সম্প্রীতি রক্ষায় শান্তি সমাবেশের নির্দেশ
প্রকাশ: শনিবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২১, ৯:৩১ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 210

শান্তি ও সম্প্রীতি বজায় রাখতে সবাইকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক দেশ। এ দেশে সব ধর্মের নাগরিকদের অন্যের ধর্মের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে হবে। বজায় রাখতে হবে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি। প্রতিটি এলাকায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নজরদারি বৃদ্ধি এবং শান্তি সম্মিলন, শান্তি মিছিল, শান্তি সভা করতে হবে। এই মাটিতে মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সবাই যেন ভালোভাবে বাঁচতে পারে।

বৃহস্পতিবার কুমিল্লা আওয়ামী লীগের নবনির্মিত অফিস ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। গণভবন থেকে অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, কুমিল্লার ঘটনাটি সত্যিই খুব দুঃখজনক। নিজের ধর্ম পালনের অধিকার সবার রয়েছে। তবে অন্যের ধর্মকেও কেউ হেয় করতে পারে না। এটাই ইসলামের শিক্ষা। নিজের ধর্মকে সম্মান করার সঙ্গে সঙ্গে অন্যের ধর্মকেও সম্মান করতে হয়। অন্য ধর্মকে হেয় করা হলে নিজের ধর্মকেই অসম্মান করা হয়। কুমিল্লার ঘটনা বিশ্লেষণ করলে আমরা সেটাই দেখব। আমাদের পবিত্র কোরআন শরিফকে অবমাননা করা হয়েছে অন্যের ধর্মকে অসম্মান করতে গিয়ে। এটাই সবচেয়ে দুঃখজনক। মহানবী হযরত মোহাম্মদ (সা.) বলেছেন, ধর্ম নিয়ে কেউ বাড়াবাড়ি করবে না। কাজেই আমাদের সবারই সে কথা মেনে চলতে হবে এবং জানতে হবে, তা হলেই সঠিক শিক্ষা আমরা পাব। প্রতিটি ধর্মই শান্তির বাণীর কথা বলে, সবাই শান্তি চায়।

শেখ হাসিনা মহান মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের আত্মত্যাগ স্মরণ করে জানান, সেখানে যারা রক্ত দিয়েছেন তাদের রক্তের সঙ্গে সব ধর্ম একাকার হয়ে মিশে গেছে। এটা সবাইকে মনে রাখতে হবে। বাংলাদেশ সব ধর্মের, সব বর্ণের এবং সব শ্রেণি-পেশার মানুষই মর্যাদা ও সম্মান নিয়ে চলবে। বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতিকে বাধাগ্রস্ত করার জন্যই মাঝেমধ্যে এ ধরনের ঘটনা ঘটানোর প্রচেষ্টা নেওয়া হয়। কুমিল্লা, পীরগঞ্জসহ বিভিন্ন জায়গায় ঘরবাড়ি পোড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তাঁবু টাঙিয়ে তাদের থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। শুকনো খাবার থেকে শুরু করে রান্না করা খাবার বিতরণ, কাপড়-চোপড় এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সবাইকেই সরকার ঘরবাড়ি তৈরি করে দেবে। ইতোমধ্যে সে ব্যবস্থা সরকার নিয়েছে।

এদিকে কুমিল্লার পূজামণ্ডপে কোরআন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার কথিত অভিযোগে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের প্রতিবাদে দেশের বিভিন্ন স্থানে সম্প্রীতি সমাবেশ, শান্তি মিছিল, মানববন্ধন, মতবিনিময় সভা, র‌্যালিসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। জেলা-উপজেলা প্রশাসন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, বিভিন্ন পেশাজীবী ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত এসব কর্মসূচি পালিত হয়।

পবিত্র কোরআনে গুজব রটানোকে শয়তানের ঘৃণ্য কাজ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। কারণ গুজবের কারণে মানুষের জানমালের ক্ষতির পাশাপাশি অনেক প্রাণহানির ঘটনাও ঘটেছে। অথচ এই পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন নিয়ে গুজব ছড়িয়ে একটি অপশক্তি বারবার দেশে সাম্প্রদায়িক শক্তি বিনষ্টের চেষ্টা করেছে। ধর্মের নামে এমন অধর্ম কোনো বিবেচনাতেই মেনে নেওয়া যায় না। 

আমরা মনে করি, কুমিল্লাসহ ইতঃপূর্বে এমন যেসব ঘটনা ঘটেছে তার একটি বিচার বিভাগীয় তদন্ত হওয়া জরুরি। পাশাপাশি এমন ঘটনা যাতে না ঘটে সেজন্য এই অপশক্তির বিরুদ্ধে সব অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল এবং সামাজিক সংগঠনকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে গড়ে তুলতে হবে গণপ্রতিরোধ। ৩০ লাখ শহীদের রক্তে ভেজা পবিত্র মাটি থেকে উৎপাটন করতে হবে সাম্প্রদায়িকতার শিকড়। তবেই এদেশে কেউ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের সাহস দেখাবে না।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]