ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১ ৩ কার্তিক ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

পত্রিকার সঠিক সার্কুলেশন নির্ণয় করে তালিকা করা হবে: তথ্যমন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বুধবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২১, ৬:১৮ পিএম আপডেট: ১৩.১০.২০২১ ১০:৩৭ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 179

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, আমরা পত্রিকার শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার কাজ শুরু করেছি। চলচ্চিত্র প্রকাশনা অধিদফতরে যেখানে পত্রিকার পত্রিকার ক্রম-সার্কুলেশন ঠিক করা হয়, সেখানে যে সার্কুলেশন দেওয়া হয় সেটি আসলে বাস্তব সম্মত নয়। আমরা আসল সার্কুলেশনের ভিত্তিতে পত্রিকার ক্রম ঠিক করবো। পত্রিকার সঠিক সার্কুলেশন নির্ণয় করে তালিকা করা হবে।

বুধবার দুপুরে অফিসার্স ক্লাবে ইংরেজি দৈনিক ‘ডেইলি বাংলাদেশ আপডেট’র আত্মপ্রকাশ ও ‘দৈনিক বিজনেস বাংলাদেশ’র পঞ্চম বর্ষপূর্তিতে প্রধান অতিথির বক্তবে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানের সভাপত্বিত করেন দৈনিক বিজনেস বাংলাদেশ এর সম্পাদক ও প্রকাশক মেহেদী হাসান বাবু। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট আবুল হাশেম খান (এমপি) কুমিল্লা ৫ আসন, দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক সাইফুল আলম, দৈনিক সময়ের আলোর নির্বাহী সম্পাদক হারুন উর রশীদ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব  মেজবাহ উদ্দিন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক  সাজ্জাদ আলম খান তপু।

মন্ত্রী বলেন, ক্যাবল অপারেটররা সিরিয়াল আগে এক নাস্বারে নিত আবার পাঁচ নাস্বারে নিত কখনো ১০ নম্বরেও নিত । আবার ইন্ডিয়ান টেলিভিশনের পরে নিয়ে যেত। ক্যাবল অপারেটরদের সঙ্গে দেন দরবার করে সিরিয়াল ঠিক রাখতে হতো। এমনকি  সিরিয়াল ঠিক রাখার জন্য মাসে মাসে টাকা দিতে হতো।  সেই পরিস্থিতির উত্তরণ হয়েছে। টেলিভিশনে ক্রম প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশি পণ্যের বিজ্ঞাপন বিদেশি চ্যানেলের মাধ্যমে প্রচার করা হতো এতে বাংলাদেশি চ্যানেলগুলো বঞ্চিত হতো।  সেটি আমরা অনেক আগে বন্ধ করেছি। একই সঙ্গে ১লা অক্টোবর থেকে আমরা বাংলাদেশে ক্লিনফিড অথ্যাৎ বিদেশি চ্যানেল বিজ্ঞাপনবিহীন ভাবে বাংলাদেশে প্রচার করতে হবে। এই আইন বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, শ্রিলংকায় আছে। ইউরোপ-আমেরিকায় আছে। সবদেশে এই আইন মানা হচ্ছে আমাদের দেশে মানা হতো না। সে আইন আমরা কার্যকর করেছি।

তথ্যমন্ত্রী আরও  বলেন, হঠাৎ যেমন বৃষ্টি হয়, তেমনি কিছু পত্রিকা আছে হঠাৎ বের হয়। সেগুলো যেদিন বিজ্ঞাপন ও ক্রোড়পত্র পায় সেদিন ছাপা হয়। আমরা এগুলো চিহ্নিত করেছি। ইতোমধ্যে ২১০টি পত্রিকার ডিক্লেয়ারেশন বাতিল করার জন্য সারাদেশের জেলা প্রশাসকদের জানানো হয়েছে। বেশ কয়েকটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, বাকিগুলোও বন্ধ করে দেওয়া হবে। এরকম আরও প্রায় ২০০ পত্রিকা আছে। পর্যায়ক্রমে সে গুলোরও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সরকারের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে দৈনিক সময়ের আলোর নির্বাহী সম্পাদক হারুন উর রশীদ বলেন, ক্লিন ফিড,অনলাইন পত্রিকার নিবন্ধন ও অবৈধ আইপি টিভি বন্ধের যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে- সেটি যেন না থামে। একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানের কর্মপরিবেশ ঠিক করা ও সংবাদকর্মীদের বেতন ভাতা  নিশ্চিতের  জোর দাবি জানাই। 

পত্রিকাটির সাফল্য কামনা করে দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক সাইফুল আলম বলেন, এই সময়ে দুটি পত্রিকা বের করা শুধু সাহসই নয় দুঃসাহসের বিষয়। আশাকরি পত্রিকা দুটি তার সাফল্য বজায় রাখবে। 

এসএ


আরও সংবাদ   বিষয়:  তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী   ড. হাছান মাহমুদ  




এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]