ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১ ৩ কার্তিক ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

ভাইরাসজনিত রোগ প্রতিরোধ শিশুর বিশেষ যত্ন
ডা. ইসমাইল আজহারি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৫ অক্টোবর, ২০২১, ৩:০০ পিএম আপডেট: ০৫.১০.২০২১ ৩:০৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 201

আজকাল বাচ্চাদের ভাইরাসজনিত জটিল সংক্রামক রোগে আক্রান্তের হার অনেক বেড়েছে। এ ধরনের রোগ থেকে শিশুরা নিরাপদ নয়। এই সময় প্রয়োজন শিশুদের বাড়তি যত্ন। ভাইরাসজনিত এসব সমস্যা নিয়ে থাকছে বিস্তারিত আলোচনা।

উপসর্গ
ভাইরাস দিয়ে আক্রান্ত হওয়ার ৩-৬ দিনের মধ্যে অল্প তাপমাত্রা থেকে মধ্যম মানের (১০২ ডিগ্রি) তাপমাত্রা সহকারে জ্বর আসে। কিছু ভাইরাসের ক্ষেত্রে ভিন্নতাও থাকতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে জ্বর হওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গলাব্যথা শুরু হবে, খাওয়ার রুচি কমে যাবে, ক্লান্তি লাগবে, শরীর দুর্বল হয়ে যাবে, গলাব্যথার কারণে শিশু খাবার কিংবা পানি কিছুই খেতে চাইবে না। তখন পানিশূন্যতা বা ডিহাইড্রেশন হতে পারে। গলাব্যথার পাশাপাশি মুখ গহ্বরের ভেতর ছোট ছোট সাদা আকৃতির ফুসকুড়ি দেখা দেবে, ঠোঁটের আশপাশে র‌্যাশ দেখা দেবে, র‌্যাশগুলো কিছুটা ব্যথার কারণ হবে। র‌্যাশগুলোতে চুলকানিও থাকতে পারে। জ্বর শুরু হওয়ার ২ থেকে ৩ দিনের মধ্যে হাত ও পায়েও র‌্যাশ দেখা দিতে পারে। হাত, পা ও মুখকে আক্রান্ত করতে পারে। বিশেষ করে হ্যান্ড ফুট অ্যান্ড মাউথ ডিজিজে এ রকম সমস্যা বেশি দেখা যায়।

কারণ 
যেকোনো সংক্রামক ভাইরাস দিয়ে সংক্রমিত হলেই এ ধরনের সমস্যা হতে পারে। যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল, তারা ভাইরাস দিয়ে সংক্রমিত বেশি হয়।

যেভাবে ছড়ায়
ভাইরাসজনিত রোগ মূলত ফিকো-ওরাল রুট এবং নাকের পানি, থুথু ও কাশির মাধ্যমে ছড়ায়। একেক ভাইরাস একেক পথ ব্যবহার করে। ভাইরাস হাত ও পায়ের র‌্যাশসমূহের সংস্পর্শের মাধ্যমেও ছড়াতে পারে। তাই বলা যায় আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শেগেলে, আক্রান্ত ব্যক্তির জামা কাপড় ব্যবহার করলে, আক্রান্ত ব্যক্তির ব্যবহৃত গ্লাস ব্যবহার করলে ভাইরাসজনিত রোগ হতে পারে; কারণ সেখানে স্যালাইভা থাকতে পারে এবং স্যালাইভাতে ভাইরাস থাকতে পারে। এ ছাড়া দূষিত পানির মাধ্যমে অর্থাৎ আক্রান্ত ব্যক্তির মলযুক্ত কোনো কাপড় যদি পুকুরে ধৌত করা হয় তাহলে সেই পানিতে ভাইরাস থাকবে। আবার সেই ভাইরাস সমৃদ্ধ পানি কোনোভাবে খাওয়া হলে সেক্ষেত্রেও ভাইরাসজনিত রোগ হতে পারে।

প্রতিরোধ
খাবার আগে ভালোভাবে হাত ধোয়া, বিশুদ্ধ পানি পান করা, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নভাবে চলা, আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে না যাওয়ার মাধ্যমে এই রোগ প্রতিরোধ করা যায়। আবার অনেকেই ছোট শিশুদের আদর করে চুমু দিয়ে থাকেন এতে করে শিশুরা বিভিন্ন প্রকার ভাইরাসজনিত রোগের ঝুঁকিতে থাকে। তাই এভাবে আদর করা থেকে বিরত থাকতে হবে, নিরাপদ রাখতে হবে। মা-বাবার এক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। সেই সঙ্গে নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করা, ভিটামিন এ, ই, সি সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। তাই এসব খাবার বেশি বেশি খেতে হবে। দুই বছর পর্যন্ত শিশুর জন্য মায়ের দুধ চলমান থাকলে এতে শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

চিকিৎসা
সাধারণত যেকোনো ভাইরাসজনিত রোগ ৭-১০ দিনের মধ্যে ভালো হয়ে যায়। তাই শিশু যদি ঠিকমতো খাবার খেতে পারে, তাহলে তেমন একটা চিকিৎসার প্রয়োজন হয় না। চিকিৎসার ক্ষেত্রে জ্বরের জন্য প্যারাসিটামল সঙ্গে চুলকানি কমানোর জন্য অ্যান্টিহিস্টামিন দেওয়া যেতে পারে। আর জ্বর না থেকে শুধু ব্যথা থাকলেও প্যারাসিটামল বা আইবুপ্রোফেন দেওয়া যেতে পারে। সঙ্গে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য সিভিট, জিংক ইত্যাদি দেওয়া যেতে পারে। তবে খেয়াল রাখতে হবে শিশু যেন পর্যাপ্ত পুষ্টি পায় এবং কোনোভাবে যেনো ডিহাইড্রেশন বা পানিশূন্যতা না হয়। পানিশূন্যতা দেখা দিলে দ্রæত হাসপাতালে নিয়ে শিরাপথে স্যালাইন দিয়ে চিকিৎসা করতে হবে। যেকোনো সমস্যায় চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। 

সিইও, সেন্টার ফর ক্লিনিক্যাল এক্সিলেন্স অ্যান্ড রিসার্চ, বাংলাদেশ




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]