ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১ ৩ কার্তিক ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

ভালো পরিবেশ পেলে দর্শক হলে যেতে আগ্রহী হবে : নিরব
গাজী আনিস
প্রকাশ: শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৩:৪৯ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 514

চিত্রনায়ক নিরব হোসেন। অভিনয়ের পাশাপাশি বর্তমানে একটি করপোরেট প্রতিষ্ঠানের প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। অভিনয়, চলচ্চিত্র ও চাকরি জীবন নিয়ে কথা বলেছেন সময়ের আলোর সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন গাজী আনিস

একের পর এক চলচ্চিত্রের কাজ শেষ করলেন। বর্তমানে সার্বিক বিষয়ে ব্যস্ততা সম্পর্কে জানতে চাই।
সম্প্রতি ‘জাল’ নামে একটি ওয়েবফিল্মে কাজ করেছি। বান্দরবান, নাইক্ষ্যংছড়ি, কক্সবাজারের ইনানি ও গাজীপুরে শুটিং হয়েছে। এতে আমার সঙ্গে আছেন মানতাসা। এ ছাড়া বন্ধন বিশ্বাসের সরকারি অনুদানের ছবি ‘ছায়াবৃক্ষ’তেও কাজ করা হয়েছে। যেখানে আমার বিপরীতে রয়েছেন অপু বিশ্বাস। এ ছাড়া অভিনেত্রী রোজিনা আপার সরকারি অনুদানের ছবি ‘ফিরে দেখা’ শেষ করলাম। এখানে জুটি বেঁধেছি স্পর্শিয়ার সঙ্গে। অন্যদিকে বুবলীর সঙ্গে আসিফ ইকবাল জুয়েলের একটি কাজ করা হয়েছে। কয়েকদিন আগে অনন্য মামুনের ‘অমানুষ’র ডাবিং করলাম।

এখন তো ওয়েব কনটেন্টের জোয়ার। ভবিষ্যৎ কেমন দেখছেন?
মানুষ বাধ্য হয়ে দেড় বছরে অনলাইন নির্ভর হয়ে গেছে। গ্রামীণফোন, বায়োস্কোপ, সিনেমেটিক অ্যাপ, আই থিয়েটার, জি ফাইভ, হইচই অনেকেই দেশের ওয়েব কনটেন্ট নিয়ে কাজ করতে এগিয়ে এসেছে। যারা কাজ করছেন তারা মনে করেছে বাংলাদেশের ওয়েবফিল্মের বাজার ভালো। তারা ভবিষ্যৎ দেখতে পেয়েছে তাই এগিয়েছে। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কাজ করলে অবশ্যই তা ভালো হবে।
 
ওটিটিনির্ভর হলে দেশের সিনেমা হলগুলো আরও অবহেলিত হওয়ার সম্ভাবনা আছে কি?
মানুষ আগের মতো করে সিনেমা দেখতে চায় না। বিশ্বের প্রথম সারির দেশগুলো মাল্টিপ্লেক্স, সিনেপ্লেক্সের দিকে ঝুঁকে গেছে। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদেরও সে পথ ধরতে হবে। ভালো পরিবেশ পেলে দর্শক হলে যেতে আগ্রহী হবে। সরকারের সহযোগিতায় যদি ৩০০ জায়গায় সিনেপ্লেক্স করা হয়, তা হলে অবস্থার পরিবর্তন হবে। সময় ও ব্যবস্থাপনা আমাদের উন্নতমানের চিন্তাভাবনা করতে বাধ্য করছে।

আমাদের চলচ্চিত্রের অবস্থা পরিবর্তনের জন্য আরও কি সংযোজন করা যেতে পারে মনে করেন?
প্রথম তো সিনেপ্লেক্স তো দরকার আর ডিভাইসের ব্যবহার থেকে সবদিকে অত্যাধুনিক হতে হবে। এর সঙ্গে জড়িতে আছে ছবির মান, প্রোডাকশন হাউস, রিয়েল ফিন্যান্সার। যারা শুধু এই ইন্ডাস্ট্রি নিয়ে কাজ করতে চান তাদের এগোনো উচিত।

ই-কমার্স নিয়ে বর্তমানে সমালোচনা হচ্ছে। আপনিও একটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত আছেন। সমালোচিত প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে আপনার প্রতিষ্ঠানের পার্থক্য কতটা?

আমার প্রতিষ্ঠানের এমডি কখনও আক্রমণাত্মক মার্কেটিং করেননি। আমরা অনেকের মতো হাজার হাজার পণ্যের অফার দেই না। আমরা ভালো প্লাটফর্ম করে সক্ষমতার ভেতর কাজ করছি। সমালোচনা হয় এমন কোনো কাজ আমরা করি না। আলিবাবা, অ্যামাজনের মতো পৃথিবীর অনেক বড় কোম্পানি তারা কিন্তু ই-কমার্স ব্যবসা করছে। এই ব্যবসা আসলে মানুষের সময় বাঁচিয়ে জীবনযাত্রা সহজ করে। একটা সময় আমরা সময়কে জয় করে ফেলব। সময়ের আগে কাজ করে ফেলব।

অভিনয় ও করপোরেট চাকরি একসঙ্গে দুই কাজ করতে গিয়ে অভিনয়ের জায়গা কতটুকু ঠিক রাখতে পারছেন।
আমি যে প্রতিষ্ঠানে পিআর অ্যান্ড কমিউনিকেশন হেড হিসেবে আছি সেখানে আমার অভিনয়ের ক্ষেত্রে কোনো বাধা নাই। এখানে আমার পরিচালক, প্রযোজক নিয়মিত আসতে পারেন। সিনেমা বিষয়ক নিয়মিত আলোচনা, আড্ডা দিতে পারছি। আমার কাছে মনে হয় মূল প্রফেশন ঠিক রেখে অন্য কিছুও করা যায়। অভিনয়ের পাশাপাশি কাজ করা, ব্যবসা করা খারাপ কিছু না। আমিও অভিনয়ের পাশাপাশি এটা করি। আমার মূল লক্ষ্য সিনেমা।

অভিনয় জগতে নিজেকে নিয়ে কতটুকু সন্তুষ্ট?
একজন মানুষের তখনই সন্তুষ্ট হওয়া উচিত যখন মনে হবে তিনি গতকালের থেকে আজ ভালো আছেন। অনেক ঘাটতি থেকে আমি নিজেকে প্রস্তুত করছি। কাজের ক্ষেত্রে শতভাগ সন্তুষ্ট।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]